মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

প্রাকৃতিক সম্পদ

স্থানীয় প্রাকৃতিক সম্পদঃ

মাটিঃ

রৌমারী উপজেলার মাটির বুনট দোঁআশ হওয়ায় শষ্য বহুমুখীকরনের সুযোগ আছে। প্রধান ফসল ধান ও গম,পাট ফললেও বর্তমানে আলুসহ অন্যান্য শাকশব্জি আবাদের এলাকা বৃদ্ধি পাচ্ছে। চর এলাকায় তিল, তিসি, চিনা, কাউন, বাদাম, পিঁয়াজ,ভুট্রা ইত্যাদি আবাদের পাশাপাশি করলা,পটল,তরমুজ, মিষ্টি আলু,ক্ষিরা,কুমড়া,বাংগী ইত্যাদি বহুমূখী ফসলের আবাদ সম্প্রসারন সম্ভব।

 

জলবায়ুঃ

বাংলাদেশের অন্যান্য স্থানের মতো এ উপজেলায় ক্রান্তীয় মেৌসুমী জলবায়ুর অন্তর্গত। এখানে ষড় ঋতুর মধ্যে প্রধানতঃতিনটি মেৌসুম জোরালো ভাবে পরিলক্ষিত হয়। বর্ষা মেৌসুমে ৯৩%বর্ষন হয়। শীত কাল অত্যন্ত শুল্ক ও শীতল। গ্রীষ্ম কালে বাতাশ খুবই উত্তপ্ত হয়। মাঝে মাঝে বর্ষনসহ কাল বৈশাখী বাতাস বয়। কিছু কিছু শিলা বৃষ্টি ও হয়।

তাপমাত্রাঃ

তাপমাত্রার উপা্ত্ত বিশ্লেষনে দেখা যায় যে,এখানে নিম্ন তাপমাত্রা ডিসেম্বর ও জানুয়ারী মাসে পরিলক্ষিত হয়। যার গড় প্রায় ১৮.১০. সে,পর্যন্ত হতে পারে। চরম উঞ্চ তাপমাত্রা ৪২.৮০.সে,মে মাসে হতে পারে।

 

বৃষ্টি পাতঃ

 

বৃষ্টি পাতের উপাত্ত বিশ্লেষনে দেখা যায় যে, শীত কালে গড় বৃষ্টি পাত ৩৩ মিলি মিটার যা বাস্পিভবনের পরিমানের চেয়ে অনেক কম।

পানি সম্পদঃভূ-পৃষ্ঠায় পানির উৎস হচেছ নদী,খাল,পুকুর ইত্যাদি। রৌমারী উপজেলার পশ্চিম দিকে ব্রক্ষ্মপুত্র নদ ও পূর্ব দিকে জিঞ্জিরাম নদী দ্বারা বেষ্টিত। উপজেলার মধ্যবর্তী অঞ্চল দিয়ে কিছু নদী/খাল প্রবাহিত হয়েছে। সারা বছর এ গুলিতে নাব্যতা থাকে না।

ভু-গর্ভস্থ পানিঃ

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন অফিসের তথ্যানুযায়ী এ উপজেলায় বর্তমানে ২৪টি গভীর নলকুপ ও ৩৪৫৫টি অগভীর নলকুপ চালু অবস্থায় আছে।

সেচ ব্যবস্থাঃ

বিভিন্ন সেচ যন্ত্রের মাধ্যমে এ উপজেলায় মোট ৫৪০০ হেক্টর জমি আবাদ করা হচেছ। সেচকৃত ফসলের মধ্যে বোরা ধানও গমই প্রধান। তবে ডাংগার উচু ও মাঝারী জমিতে সেচের সাহায্যে আলু এবংশাকশব্জিও আবাদ করা হচ্ছে।


Share with :

Facebook Twitter